সৌদি আরব রেস্টুরেন্ট ভিসা– বর্তমান আমাদের দেশের বেকারত্বের হার দিন দিন বেড়েই চলেছে। এছাড়াও আমাদের দেশে শিক্ষিত বেকারের সংখ্যা অনেক বেশি। এছাড়াও করোনা মহামারীর কারণে আমাদের দেশের অর্থনৈতিক অবস্থা খুব খারাপ পর্যায়ে এসে পড়েছে। এই কারণে অনেক শিক্ষিত তরুণ দেশের বাইরে যাওয়ার চিন্তা ভাবনা করে। 

আপনি নিশ্চয়ই দেশের বাইরে কর্মরত হতে যাচ্ছেন। আমাদের দেশ থেকে সবথেকে কম খরচে আপনি সৌদি আরব পাড়ি জমা হতে পারেন। সৌদি আরব ভিসা গুলোর মধ্যে সৌদি আরব রেস্টুরেন্ট ভিসা ও সৌদি আরব হোটেল ভিসা করতে আপনার খরচ কম হবে। এছাড়াও রেস্টুরেন্ট ভিসা ও হোটেল দেশের সুযোগ-সুবিধা অনেক বেশি। 

তাই যে সকল তরুণ সৌদি আরব যেতে চায়,তাদের প্রথম পছন্দ থাকে রেস্টুরেন্ট ও হোটেল ভিসা। আপনিও নিশ্চয়ই সৌদি আরবে রেস্টুরেন্ট ভিসা নিয়ে যেতে চাচ্ছেন। আপনি যদি সৌদি আরবে যেতে চান তাহলে আজকের আর্টিকেল খুব মনোযোগ সহকারে পড়বেন। কারণ আজকে আমরা সৌদি আরব রেস্টুরেন্ট ভিসা ও সৌদি আরব হোটেল সম্পর্কে বিস্তারিত আলোচনা করবো। 

সৌদি আরব রেস্টুরেন্ট ভিসা-সৌদি আরব হোটেল ভিসা

সৌদি আরব রেস্টুরেন্ট ভিসা

আপনি যদি সৌদি আরবের রেস্টুরেন্ট ভিসা নিয়ে যান তাহলে বিভিন্ন রকমের কাজের সুযোগ সুবিধা পাচ্ছেন। এছাড়াও আপনার খরচ তুলনামূলকভাবে অনেক কম হবে। সৌদি আরব ভিসার মধ্যে সৌদি আরব আবাসিক ভিসা অন্যতম। আমাদের দেশ থেকে যে সকল ব্যক্তি সৌদি আরব রেস্টুরেন্ট ভিসা নিয়ে যেতে চায়। তারা সবাই আবাসিক রেস্টুরেন্টে চাকরি করতে চায়।

কারণ আপনি যদি আবাসিক রেস্টুরেন্টের চাকরি করেন তাহলে আপনাকে হোটেলে থাকা খাওয়ার সুযোগ সুবিধা দেয়া হবে। এছাড়াও আপনি ১০ ঘন্টা ডিউটি করার পর, অতিরিক্ত আরো দুই ঘন্টা কাজ করতে পারবেন। অতিরিক্ত কাজের পারিশ্রমিক আপনাকে আলাদা দেওয়া হবে। 

অনেকের জানার ইচ্ছা থাকে, সৌদি আরব রেস্টুরেন্ট ভিসা নিয়ে গেলে আমাকে কি কি কাজ করতে হবে। রেস্টুডেন্ট ভিসার মূল কাজ হল রেস্টুডেন্ট ক্লিনার করা, ওয়েটারের কাজ করা, কিচেনে কাজ করা, খাদ্য প্রস্তুত করা ইত্যাদি। 

সৌদি আরব রেস্টুরেন্ট ভিসা খরচ

সৌদি আরব যাওয়ার আগে আপনাকে রেস্টুরেন্ট ভিসা খরচ সম্পর্কে জানতে হবে। অন্যান্য দেশের তুলনায় আপনি খুব কম খরচে সৌদি আরব রেস্টুরেন্ট ভিসা নিয়ে যেতে পারবেন। সৌদি আরবে রেস্টুরেন্ট ভিসা নিয়ে গেলে আপনার সর্বোচ্চ তিন লক্ষ টাকা খরচ হতে পারে। কাজের ধরন ও মেয়াদের উপর আপনার ভিসা খরচ নির্ভর করবে।  

সৌদি আরব রেস্টুরেন্ট ভিসার কাগজপত্র

আপনি যদি সৌদি আরব রেস্টুরেন্ট ভিসা করতে চান। তাহলে আপনাকে প্রয়োজনীয় কাগজপত্র আগে থেকে সংগ্রহ করতে হবে। সৌদি আরব রেস্টুরেন্ট ভিসার জন্য প্রয়োজনীয় কাগজপত্র নিম্নরূপ:- 
  1. প্রথমে আপনার একটি বৈধ পাসপোর্ট লাগবে। পাসপোর্ট এর মেয়াদ ন্যূনতম দুই বছর। 
  2. ন্যাশনাল আইডি কার্ড/ড্রাইভিং লাইসেন্স।
  3. অভিজ্ঞতা সনদ, আপনার যদি রেস্টুরেন্ট কাজে কোন অভিজ্ঞতা থেকে থাকে। তাহলে অভিজ্ঞতা সনদ জমা দিতে পারেন। 
  4. আবেদনকারীর সদ্যতোলা ৫ কপি সাদা ব্যাকগ্রাউন্ড এর পাসপোর্ট সাইজের ছবি।
  5. নিজের থানা থেকে পুলিশ ক্লিয়ারেন্স সার্টিফিকেট।
  6. আবেদনকারীরা অবশ্যই মেডিকেল চেকআপ করতে হবে। শারীরিক চেকআপ করার পর মেডিকেল সার্টিফিকেট জমা দিতে হবে।
  7. বর্তমান সময়ে দেশের বাইরে যাওয়ার জন্য করোনা ভাইরাসের টাকা গ্রহণ করতে হবে।

সৌদি আরব রেস্টুরেন্ট কাজের বেতন

আপনি যদি সৌদি আরবের ভিসা নিয়ে যেতে চান তাহলে অবশ্যই বেতন কতটা জানতে হবে। কারণ আপনি সৌদি আরব যাচ্ছেন শুধু টাকা উপার্জন এর জন্য। আপনার যদি মাসিক উপার্জন জানা না থাকে তাহলে অনেক পিছিয়ে থাকবেন। বাংলাদেশী টাকায় আপনি প্রত্যেক মাসে রেস্টুরেন্টে কাজ করে সর্বনিম্ন ৩৫ হাজার টাকা ইনকাম করতে পারবেন। এছাড়াও রেস্টুরেন্ট এর কাজ করলে আপনি বিভিন্ন কাস্টমারের কাছ থেকে বোনাস টাকা পাবেন। এগুলো আপনার এক্সট্রা ইনকাম থাকবে। 

সৌদি আরব হোটেল ভিসা

সৌদি আরব রেস্টুরেন্ট ভিসা ও সৌদি আরব হোটেল ভিসা অনেকটা কাছাকাছি। রেস্টুরেন্ট ভিসা ও হোটেল ভিসার কাজ একই। এছাড়াও খরচ তুলনামূলকভাবে একই হয়ে থাকে। রেস্টুরেন্ট ভিসা বলতে আপনাকে রেস্টুরেন্টের যাবতীয় কাজ করতে হবে। আর সৌদি আরব হোটেল ভিসা হল আপনাকে হোটেল পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন, হোটেলে খাবার দেওয়া, কাস্টমারের জন্য খাবার প্রস্তুত করা এগুলো কাজ করতে হবে। 

সৌদি আরব হোটেল ভিসা নিয়ে গেলে আপনি বিভিন্ন রকম সুযোগ-সুবিধা পাবেন। আপনি সর্বোচ্চ দুই বছর মেয়াদে হোটেল ভিসা করতে পারবেন। কাজ করার সময় যাতায়াত খরচ ও ইন্টারনেট খরচ আপনার কোম্পানির বহন করবে। আপনি যদি ইংরেজি ভাষায় ভালো কথা বলতে পারেন, তাহলে খুব অল্প দিনে ভালো একটি অবস্থায় যেতে পারবেন। 

এই কারণে সৌদি আরব হোটেল ভিসা করার আগে আপনাকে ইংরেজি ভাষার প্রতি বেশি খেয়াল রাখতে হবে। যারা ইংরেজি ভাষায় কাস্টমারের সাথে কথা বলতে পারবে। তাদের কিন্তু আর হোটেল পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন করতে হবে না। আপনাকে হোটেল কোম্পানি ওয়েটারের কাজ দেবে। 

আপনি যদি ভালোভাবে কাস্টমারের সাথে কথোপকথন করতে পারেন। তাহলে অল্প দিনে আপনি প্রমোশন পেয়ে যাবেন। এ কারণে আপনাকে ইংরেজি ভাষায় কথা বলা শিখতে হবে। ইংরেজি ভাষা শেখার জন্য আপনি ইউটিউব চ্যানেলের সাহায্য নিতে পারেন। 

সৌদি আরব হোটেল ভিসার প্রয়োজনীয় কাগজপত্র

  • বর্তমান সময়ে দেশের বাইরে যাওয়ার জন্য করোনা ভাইরাসের টাকা গ্রহণ করতে হবে।
  • প্রথমে আপনার একটি বৈধ পাসপোর্ট লাগবে। পাসপোর্ট এর মেয়াদ ন্যূনতম দুই বছর। 
  • ন্যাশনাল আইডি কার্ড/ড্রাইভিং লাইসেন্স।
  • অভিজ্ঞতা সনদ, আপনার যদি রেস্টুরেন্ট কাজে কোন অভিজ্ঞতা থেকে থাকে। তাহলে অভিজ্ঞতা সনদ জমা দিতে পারেন। 
  • আবেদনকারীর সদ্যতোলা ৫ কপি সাদা ব্যাকগ্রাউন্ড এর পাসপোর্ট সাইজের ছবি।
  • নিজের থানা থেকে পুলিশ ক্লিয়ারেন্স সার্টিফিকেট।
  • আবেদনকারীরা অবশ্যই মেডিকেল চেকআপ করতে হবে। শারীরিক চেকআপ করার পর মেডিকেল সার্টিফিকেট জমা দিতে হবে।

উপসংহার

আশা করি, সৌদি আরব রেস্টুরেন্ট ভিসা ও সৌদি আরব হোটেল ভিসা করার নিয়ম জানতে পেরেছেন। আপনি যদি সৌদি আরব কাজের ভিসা নিয়ে যেতে চান,তাহলে অবশ্যই আপনাকে সরকারি একটা এজেন্সির সাথে যোগাযোগ করতে হবে। এজন্য চাইলে আপনি বাংলাদেশ প্রবাসী মন্ত্রণালয় থেকে ভিসার জন্য আবেদন করতে পারেন। 

কারণ বর্তমান সময়ে সৌদি আরব রেস্টুরেন্ট ভিসা নিয়ে অনেক জালিয়াতি করা হচ্ছে। এই কারণে আপনাকে সরকার স্বীকৃতি ভিসা এজেন্সির সাথে যোগাযোগ করতে হবে। সৌদি আরব হোটেল ভিসা সম্পর্কে কোন প্রশ্ন থাকলে মন্তব্য করুন। 

Previous articleদুবাই হোটেল ভিসা | দুবাই কাজের ভিসা
Next articleআইইএলটিএস ছাড়া স্টুডেন্ট ভিসা | ielts ছাড়া কি কানাডা যাওয়া যায়

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here